derek o'brien tweets comparing modis data with tmc's data - প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য 'ভুল', পরিসখ্যান দিয়ে টুইট ডেরেকের | Editorji Bengali

editorji

editorji অ্যাপ ডাউনলোড করুন
google apple
  1. home
  2. > রাজনীতি
  3. > প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য 'ভুল', পরিসংখ্যান দিয়ে টুইট ডেরেকের
replay trump newslist
up NEXT IN 5 SECONDS sports newslist
tap to unmute
00:00/00:00
NaN/0

প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য 'ভুল', পরিসংখ্যান দিয়ে টুইট ডেরেকের

Feb 23, 2021 13:52 IST

 হুগলির জনসভা থেকে সোমবার রাজ্য সরকারকে আক্রমণ করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ'বার  তথ্য-পরিসংখ্যান তুলে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য খণ্ডন করলেন তৃণমূলের রাজ্যসভা সাংসদ ডেরেক ও'ব্রায়েন।

 প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, তৃণমূল জমানায় রাজ্যে উন্নয়নের গতি স্তব্ধ। ডেরেকের পাল্টা যুক্তি, ২০১০ সালে রাজ্যে মাথাপিছু বার্ষিক উপার্জন ছিল ৫১,৫৪৩ টাকা। ২০১৯ সালে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ৯ হাজার টাকা।

পশ্চিমবঙ্গে গত এক দশকে শিল্পায়ন এবং কর্মসংস্থান হয়নি বলে অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। তৃণমূলের পাল্টা দাবি, বাংলায় এই মুহূর্তে প্রায় ৮৯ লক্ষ ক্ষুদ্র শিল্প রয়েছে। ২০১২ সালে এর মাধ্যমে ৩৪.৬ লক্ষ লোকের কর্মসংস্থান হত। এখন সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ৩৫ লক্ষে।


 কেন্দ্রীয় সরকারের প্রধানমন্ত্রী কিষান যোজনা এবং আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্প পশ্চিমবঙ্গে চালু করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। ডেরেকের দাবি, কৃষকদের জন্য ইতিমধ্যেই রাজ্য সরকার নানাবিধ প্রকল্প গ্রহন করেছে। বাংলায় কৃষকের উপার্জন বৃদ্ধি পেয়েছে ৩ গুণ।  টুইটারে পোস্ট করে ডেরেক জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকার কৃষকদের বছরে একরপ্রতি ৬০০০ টাকা দেয়। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় সরকার দেয় একরপ্রতি ১২১৪ টাকা। আয়ুষ্মান ভারতের দু'বছর আগেই রাজ্য সরকার স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্প গ্রহন করেছে, যার সুবিধা পান রাজ্যের ১০০ শতাংশ মানুষ।

বাংলায় পাট এবং আলুর চাষ অবহেলিত থেকেছে বলে দাবি করেছেন প্রধানমন্ত্রী। ডেরেকের পাল্টা যুক্তি, ২০১৯ সালে রাজ্য সরকার পাটচাষের জন্য প্রশিক্ষণ দিয়েছে। পাটচাষিদের থেকে ৭ কোটি ব্যাগ কিনেছে সরকার। আলু চাষের যোগ্য হিসেবে ১০০০ একর জমি চিহ্নিত করেছে রাজ্য। লকডাউনে অনিয়ন্ত্রিত মূল্যবৃদ্ধি রুখতে কেজি প্রতি ২৫ টাকা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল আলুর দাম। 

পানীয় জলের প্রশ্নেও সোমবার রাজ্যকে আক্রমণ করেন প্রধানমন্ত্রী। তাঁর দাবি, কেন্দ্রীয় সরকার পানীয় জলের জন্য ১৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করলেও রাজ্য মাত্র ৬০৯ কোটি টাকা খরচ করতে পেরেছে। ডেরেকের পাল্টা দাবি, রাজ্য সরকার ইতিমধ্যেই বাংলার ২ কোটি বাড়িতে পানীয় জল পৌঁছে দিচ্ছে। এর জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে ৫৮ হাজার কোটি টাকা।

রাজনীতি